শিক্ষা

বিলাসী গল্পের মূল বিষয়বস্তু জেনে নিন

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় (১৮৭৬-১৯৩৮) বাংলা সাহিত্যে অপরাজেয় কথাশিল্পী হিসেবে খ্যাত। জীবনের নানা অভিজ্ঞতা ও বিচিত্র সব মানুষের চরিত্র তিনি ফুটিয়ে তুলেছেন তাঁর বহু ছােটগল্পে। বিলাসী’ শরৎচন্দ্রের এরকমই একটি ছােটগল্প । আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে বিলাসী গল্পের বিষয়বস্তু বা বিলাসী গল্পের মূলভাব ব্যাখ্যা নিয়ে মূল বিস্তারিত জেনে নিন।

বিলাসী গল্পের বিষয়বস্তু

ন্যাড়া’ নামের এক যুবকের জবানিতে ‘বিলাসী’ গল্পটি বিবৃত হয়েছে। মূলত ন্যাড়া চরিত্রে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের | ছেলেবেলার ছায়াপাত ঘটেছে। বিলাসী’ গল্পে বর্ণিত হয়েছে দুই ব্যতিক্রমধর্মী মানব-মানবীর প্রেমের মহিমা, যা ছাপিয়ে উঠেছে জাতিগত বিভেদের সংকীর্ণ সীমা।

গল্পে চিত্রিত হয়েছে অশিক্ষা, কুসংস্কার, ধর্মীয় গোঁড়ামি, অনুদার মনােবৃত্তি, পরনিন্দা, বৈষম্যমূলক আচার-আচরণ, দুর্বলের প্রতি সবলের নির্যাতন অর্থাৎ তৎকালীন হিন্দু সমাজের বীভৎস রূপ। বিলাসী’ গল্পে এসব বিষয় চমৎকারভাবে জীবন্ত হয়ে ফুটে উঠেছে।

See also  মার্কেটিং সাবজেক্ট রিভিউ (Marketing Subject Review Bangla)

বিলাসী’ গল্পের ঘটনা আবর্তিত হয়েছে প্রধান নারী চরিত্র কর্মনিপুণ, বুদ্ধিমতী ও সেবাব্রতী বিলাসী এবং কেন্দ্রীয় পুরুষ চরিত্র উদার, নির্ভীক, দৃঢ়চেতা, ধৈর্যশীল ও প্রণয়নিষ্ঠ মৃত্যুঞ্জয়কে কেন্দ্র করে। মৃত্যুঞ্জয় ছিল অনাথ এক যুবক। এক জ্ঞাতি খুড়া ইভা আপনজন বলতে তার অন্য কেউ ছিল না।

প্রিয় পাঠক আপনি এই পোষ্টে পড়ছেন বিলাসী গল্পের বিষয়বস্তু নিয়ে। আমরা সাইটে আপনাদের সিলেবাস অনুযায়ী আরও কিছু এ সম্পর্কিত শিক্ষামূলক আর্টিকেল পাবলিশ করেছি। চলুন বাকী অংশ পড়ে নেওয়া যাক। 

পাশাপাশি আরও পড়তে পারেনঃ

প্রতিদান কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

তাহারেই পড়ে মনে কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

আঠারাে বছর বয়স কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

বিলাসী গল্পের মূলভাব

তার বিরাট একটি আম-কাঁঠালের বাগান ছিল। জ্ঞাতি খুড়াও নিজেকে সেই বাগানের অর্ধেক অংশীদার বলে প্রচার করেন এবং মৃত্যুঞ্জয়ের নামে নানা ধরনের দুর্নাম রটান। মৃত্যুঞ্জয় ছিল উদার প্রকৃতির। তার উদারতার সুযােগ নিয়ে ফুলের অনেক ছেলে নানা কারণ দেখিয়ে টাকা-পয়সা চেয়ে মত।

See also  ইংরেজি সাবজেক্ট রিভিউ (English subject review in Bangladesh)

কিন্তু সামাজিক দুর্নামের ভয়ে প্রকাশ্যে তার সঙ্গে কেউ কথা পর্যন্ত বলত না। মৃত্যুঞ্জয় একবার কঠিন রােগে আক্রান্ত হয়ে পড়লে তাকে মৃত্যুর কবল থেকে রক্ষা করে মালােপাড়ার সাপুড়েকন্যা বিলাসী। সেবাব্রতী বিলাসী শরৎচন্দ্রের উজ্জ্বল নায়িকাদের মতােই এক প্রেমময়ী নারী।

অসীম ধৈর্য ও সাহসিকতার সঙ্গে বিলাসী তার সেবা-যত্ন দিয়ে মৃত্যুঞ্জয়কে * রয়ে তুলেছে। মতঞ্জয় সেরে উঠেছে ঠিকই, কিন্তু সমাজ তাকে অন্নপাপের অস্বাদে অভিযুক্ত করেছে। কারণ সে নিচু জাতের মেয়ে বিলাসীর হতে খাদ্য গ্রহণ করেছে। উচ্চ বর্ণীয় হিন্দু সমাজের চোখে এটি যে এক মহাপাপ!

এই অভিযােগকে পাত্তা না দিয়ে মৃত্যুঞ্জয় বলাসীকে বিয়ে করে এবং জাত-কুলের মূলে কুঠারাঘাত করে পৈতৃক ভিটা ছেড়ে মালােপাড়ায় নতুন বসতি গড়ে।

এখানেই শেষ হলো। আশাকরি আমাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার বিলাসী গল্পের মূলভাব পড়ে আপনার ভালো লেগেছে। আমাদের সাইটে এসে বিলাসী গল্পের বিষয়বস্তু নিয়ে পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই।

See also  দর্শন সাবজেক্ট রিভিউ (Philosophy Subject Review Bangla)

পাশাপাশি আরও পড়তে পারেনঃ

প্রতিদান কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

তাহারেই পড়ে মনে কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

আঠারাে বছর বয়স কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button