উচ্চ মাধ্যমিক

বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর ২০২২

প্রিয় পাঠক স্বাগতম জানাই আমাদের সাইটের আজকের নতুন ব্লগ পোষ্টে। আপনি যদি ইতিমধ্যে অনুসন্ধান করে থাকেন বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর ২০২২ নিয়ে তবে সঠিক জায়গায় এসেছেন। প্রশ্নের উত্তর গুলো পাশাপাশি দেওয়া হয়েছে আপনাদের পড়ার সুবিধার্থে। আপনাদের সিলেবাসের উপর ভিত্তি করে পাঠ্য সম্পর্কিত আরো প্রশ্নোত্তর ও আমাদের সাইটে খুঁজে পাবেন। চলুন শুরু করা যাক।

বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর ২০২২

সৃজনশীল প্রশ্ন নম্বর ১

ধর্মের অপব্যাখ্যা এবং আত্মস্বার্থে ধর্মের ব্যবহার-এর আলােকে প্রণীত। বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়-এর অশনি সংকেত’ উপন্যাসের ব্রাহ্মণ গঙ্গাচরণ চক্কত্তি ঐ গ্রামের বিশ্বাস মশায়ের গরু গলায় দড়ি আটকে মারা গেলে সেটাকে গােবধ মহাপাপ বলে স্বস্ত্যয়ন করার নির্দেশ দেয়। এতে পনেরাে-কুড়ি টাকা খরচ হবে বলে হিসেব দেয়। বাড়ির মধ্যে গিয়ে নিজের যা যা লাগবে তার লিস্ট ধরিয়ে দেয়। গঙ্গাচরণ আসলে ধর্মকে সামনে রেখে এভাবে নিজের প্রয়ােজনই পূরণ করে থাকে। তাছাড়া সে শাস্ত্র জানা ব্রাহ্মণ বলে গ্রামের সকলে তাকে গৃহস্থালি সামগ্রী দিয়ে সহায়তা করে। 

ক. বর্তমানের কোন শ্রেণিকে পূর্বে সেকেন্ড ক্লাস বলা হতাে?

খ. বিলাসী আত্মহত্যা করার পর মৃত্যুঞ্জয়ের খুড়া মশাই গ্রামের লােকদের কাছে কী রটিয়েছিলেন? ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকটি বিলাসী’ গল্পের কোন দিকটির সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ? ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকে ‘বিলাসী’ গল্পের একটি বিশেষ দিকের প্রতিফলন ঘটেছে, গল্পের মূলভাবের পূর্ণ প্রতিফলন ঘটেনি।” | মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

উপরোক্ত তথ্য অনুযায়ী বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর সম্পর্কিত এই আর্টিকেলে সৃজনশীল প্রশ্নগুলো কেমন হতে পারে তা আপনি দেখে নিয়েছেন। চলুন এবার তবে প্রশ্নের উত্তর গুলোও দেখে নেওয়া যাক।

পাশাপাশি আরও পড়তে পারেনঃ

প্রতিদান কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

তাহারেই পড়ে মনে কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

আঠারাে বছর বয়স কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

 

সৃজনশীল প্রশ্ন নম্বর ১ এর উত্তর সমূহ

ক উত্তরঃ বর্তমানের নবম শ্রেণিকে পূর্বে সেকেন্ড ক্লাস বলা হতাে।

খ উত্তরঃ বিলাসী আত্মহত্যা করার পর মৃত্যুঞ্জয়ের খুড়া মশাই গ্রামের লােকদের কাছে কুৎসা রটিয়েছিলেন।

‘বিলাসী’ গল্পে বিলাসী রাত জেগে সেবা করে মৃত্যুপথযাত্রী অসুস্থ মৃত্যুঞ্জয়কে সুস্থ করে তােলে। মৃত্যুঞ্জয় ভালােবেসে বিলাসীকে বিয়ে করলে তার খুড়া মশাই চড়াও হন। জাতভেদের বিবেচনায় তিনি অনুপাপের জন্য মৃত্যুঞ্জয় ও বিলাসীর ওপর অত্যাচার-নির্যাতন চালান। অবশেষে মৃত্যুঞ্জয়ের মৃত্যুর পর বিলাসী আত্মহত্যা করলে তিনি খুশি হন।

মৃত্যুঞ্জয়ের সমস্ত সম্পত্তির দখল নিয়ে তাদের নামে গ্রামবাসীর কাছে কুৎসা রটিয়ে বেড়ান। তিনি বলেন- ‘ওর যদি না অপঘাত-মৃত্যু হবে, তাে হবে কার?’ গ্রামের লােকেরা তখন। অন্নপাপের প্রায়শ্চিত্ত নেই বলে মত প্রকাশ করে। তারা খুড়াের প্রকৃত উদ্দেশ্য বুঝতে পারে না।

সারকথা :বিলাসী আত্মহত্যা করার পর মৃত্যুঞ্জয়ের খুড়া মশাই গ্রামের লােকদেরকে বিলাসীর অপঘাতে মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করেছিলেন।

গ উত্তরঃ উদ্দীপকটি বিলাসী’ গল্পের জাত-ভেদের দোহাই দিয়ে মৃত্যুঞ্জয়ের খুড়ার আত্মস্বার্থ সিদ্ধির দিকটির সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

জাত-ধর্মের ভেদ মানুষের তৈরি। স্রষ্টার কাছে সব মানুষ সমান। সেখানে জাত-ধর্মের কোনাে পার্থক্য নেই। মানুষ নিজ স্বার্থে ধর্মকে ব্যবহার করে অন্য মানুষকে কষ্ট দেয়, যা অত্যন্ত হীন ও অমানবিক কাজ। উদ্দীপকে ধর্মকে সামনে রেখে গঙ্গাচরণ যে নিজের স্বার্থ উদ্ধার করে তা তুলে ধরা হয়েছে।

ব্রাহ্মণ গঙ্গাচরণ চক্কত্তি গলায় দড়ি আটকে মারা যাওয়া গরুর মালিক বিশ্বাস মশাইকে গােবধ মহাপাপ বলে স্বস্ত্যয়ন করার নির্দেশ দেয়। এই অপরাধের জন্য গরুর মালিককে পনেরাে-কুড়ি টাকা খরচের কথা জানায় এবং তার নিজের যা যা লাগবে তার একটি লিস্ট ধরিয়ে দেয়।

See also  অপরিচিতা গল্পের সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর জেনে নিন

ধর্মের দোহাই দিয়ে গঙ্গাচরণের এই অন্যায় কাজের সঙ্গে ‘বিলাসী গল্পের জাত-ভেদের দোহাই দিয়ে খুড়া যে নিজের ভাইপাের সম্পত্তি-বাগান দখল পেতে ষড়যন্ত্র করেন, মৃত্যুঞ্জয়কে নানাভাবে কষ্ট দেন, বিলাসীকে বিয়ে করা এবং তার হাতের খাবার খাওয়াকে অন্নপাপ বলে প্রচার করেন, মৃত্যুঞ্জয়কে সমাজচ্যুত করে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেন, উচু-নিচু জাতভেদকে সামনে রেখে নিজের স্বার্থ হাসিল করেন সেগুলাে সাদৃশ্যপূর্ণ।

সারকথা : উদ্দীপকে ধর্মকে সামনে রেখে নিজের স্বার্থের জন্য ব্রাহ্মণ গঙ্গাচরণ অযথাই বিশ্বাস মশাইয়ের ওপর গােহত্যার মহাপাপ চাপিয়ে দেয়। বিলাসী’ গল্পে মৃত্যুঞ্জয়ের বাগান দখল করতে খুড়া মশাই জাতভেদের কথা তুলে মৃত্যুঞ্জয় ও বিলাসীকে নির্যাতন করেন।

হুবুহু সৃজনশীল প্রশ্ন খবুই কম কমন পড়তে দেখা যায় । তাই এই পোষ্ট বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর এর পাশাপাশি মূল বই থেকে এ সম্পর্কিত আরও বিষয়বলী গুলো ও ধারণা রাখুন। এতে করে যেভাবেই প্রশ্ন আসুক না কেনো আপনি যাতে উত্তর করতে পারেন। চলুন বাকী অংশ পড়ে নেওয়া যাক।

ঘ উত্তরঃ “উদ্দীপকে ‘বিলাসী’ গল্পের একটি বিশেষ দিকের প্রতিফলন ঘটেছে, গল্পের মূলভাবের পূর্ণ প্রতিফলন ঘটেনি।”- মন্তব্যটি যথার্থ । মানুষের কল্যাণ সাধনের জন্যই ধর্মের বিকাশ। ইহলৌকিক ও পারলৌকিক শান্তির জন্যই মানুষের ধর্মচর্চা করা উচিত। অথচ একশ্রেণির স্বার্থপর মানুষ ধর্মকে তাদের স্বার্থে ব্যবহার করে।

তারা ধর্মের দোহাই দিয়ে অন্যায়ভাবে অন্য মানুষের ওপর অত্যাচারনির্যাতন চালায়, অমানবিক আচরণ করে। উদ্দীপকে আত্মস্বার্থে ধর্মকে ব্যবহারের একটি কৌশল তুলে ধরা হয়েছে। এখানে ব্রাহ্মণ গঙ্গাচরণ টাকা ও জিনিসপত্র পাওয়ার লােভে বিশ্বাস মশাইয়ের গরুর গলায় দড়ি আটকে মরে যাওয়াকে গােহত্যার মতাে মহাপাপ বলে উল্লেখ করেছেন।

আর তা থেকে মুক্তির জন্য বিশ্বাস মশাইয়ের কাছে পনেরাে-কুড়ি টাকা এবং প্রয়ােজনীয় জিনিসপত্র দাবি করেছে। ধর্মকে পুঁজি করে তার এ স্বার্থ হাসিলের কৌশল অত্যন্ত ঘৃণিত কাজ। ধর্মীয় গুরুদের এ ধরনের ধর্মের অপব্যবহার ব্যক্তি ও সমাজের জন্য ক্ষতিকর ও অমানবিক।

এ দিকটি বিলাসী’ গল্পে জাতভেদের পার্থক্যকারী তৎকালীন হিন্দু সমাজপতিদের দ্বারা বিলাসী ও মৃত্যুঞ্জয়ের প্রতি অমানবিক আচরণের দিকটিকে নির্দেশ করে। গল্পে মৃত্যুঞ্জয়ের খুড়া মৃত্যুঞ্জয়ের সহায়-সম্পত্তির লােভে তাকে অনুপাপের দায় দিয়ে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়েছে।

এ বিষয়টি ছাড়া উদ্দীপকে ‘বিলাসী’ গল্পের অন্য কোনাে বিষয় প্রতিফলিত হয়নি। ‘বিলাসী’ গল্পে ব্যতিক্রমধর্মী দুই মানব-মানবীর অসাধারণ প্রেমের মহিমা বর্ণিত হয়েছে। এ প্রেম জাতিগত বিভেদের সংকীর্ণ সীমা ছাপিয়ে উঠেছে। এ প্রেমের জন্য স্বামী মৃত্যুঞ্জয়ের মৃত্যুর পর বিলাসী স্বেচ্ছামৃত্যুর পথ বেছে নিয়েছে।

এ ধরনের মানবপ্রেমের কোনাে ঘটনা উদ্দীপকে বর্ণিত হয়নি। এ গল্পে প্রেমের মহিমাময় আলােয় সেকালের সমাজের অনুদারতা ও রক্ষণশীলতা, জীবনের নিষ্ঠুর ও অশুভ চেহারা যেভাবে ধরা পড়েছে তা উদ্দীপকে প্রতিফলিত হয়নি। এসব দিক বিচারে তাই বলা যায়, প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি যথার্থ।

সারকথা : ‘বিলাসী’ গল্পে প্রতিফলিত হিন্দুধর্মের জাত-ভেদ ও রক্ষণশীলতার যে দিকটি প্রতিফলিত হয়েছে তার সঙ্গে উদ্দীপকের ব্রাহ্মণ গঙ্গাচরণের নিজের স্বার্থে য় ধর্মের ব্যবহারের মিল রয়েছে। গল্পের অসাধারণ মানবপ্রেম, স্বামীর জন্য স্বেচ্ছামৃত্যু ইত্যাদি বিষয়ের সঙ্গে উদ্দীপকের মিল নেই। এ দিক থেকে মন্তব্যটি যথার্থ।

প্রিয় পাঠক আপনি ইতিমধ্যে আমাদের সাইটের মাধ্যমে বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর  ১টি পূর্ণাঙ্গ সম্পন্ন করেছেন। চলুন এ সম্পর্কিত আরও একটি দেখে নেওয়া যাক।

See also  মাসি পিসি গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

পাশাপাশি আরও পড়তে পারেনঃ

প্রতিদান কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

তাহারেই পড়ে মনে কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

আঠারাে বছর বয়স কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন নম্বর ২

স্ত্রীর প্রতি গভীর অনুরাগ ও ভালােবাসা-এর আলােকে প্রণীত। এই যে একা কবরস্থানে এসে কত রাত্তির ধরে শুধু কেঁদেছি, কিন্তু এত কান্না এত ব্যাকুল আহ্বানেও ত কই তার এতটুকু সাড়া পাওয়া গেল না। তিনি কি এতই ঘুমুচ্ছেন? কি গভীর মহানিদ্রায় সে? আমার এত বুকফাটা কান্নার এত আকাশচেরা চিৎকারের এতটুকু কি তার স্বামীর কানে গেল না?

ক. বিদ্যা অর্জন করেছেন এমন পণ্ডিতকে কী বলে?

খ. ‘ঠিক যেন ফুলদানিতে জল দিয়া ভিজাই রাখা বাসি ফুলের মতাে।’- এ কথা কাকে উদ্দেশ করে বলা হয়েছে? ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকটি বিলাসী’ গল্পের কোন দিকটিকে নির্দেশ করেছে? ব্যাখ্যা কর। ।

ঘ. উদ্দীপকের মূলভাব এবং ‘বিলাসী’ গল্পের মূলভাব এক নয়।”- মন্তব্যটির যথার্থতা প্রমাণ কর ।

পাঠক সাহেব আপনি ইতিমধ্যে উপরোক্ত তথ্য অনুযায়ী বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর ২০২২ সম্পর্কিত আর্টিকেলে ২য় তম সৃজনশীল প্রশ্নগুলোর নমনুা কেমন হতে পারে তা দেখে নিয়েছেন। চলুন এবার তবে প্রশ্নের উত্তর গুলোও দেখে নেওয়া যাক।

গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর পেতে এখানে চাপুন

সৃজনশীল প্রশ্ন নম্বর ২ এর উত্তর সমূহ

ক উত্তরঃ বিদ্যা অর্জন করেছেন এমন পণ্ডিতকে কৃতবিদ্য বলে ।

খ উত্তরঃ ‘ঠিক যেন ফুলদানিতে জল দিয়া ভিজাই রাখা বাসি ফুলের মতাে।’- এ কথা বিলাসীকে উদ্দেশ করে বলা হয়েছে। ‘বিলাসী’ গল্পের কথক ন্যাড়া মৃত্যুঞ্জয়ের অসুস্থতা এবং তাকে সেবাদানকারী বিলাসীর অবস্থা বর্ণনা করতে গিয়ে প্রশ্নোক্ত কথাটি বলে।

ন্যাড়া একদিন সন্ধ্যার অন্ধকারে লুকিয়ে বনের মধ্যে পােড়ােবাড়িতে অসুস্থ মৃত্যুঞ্জয়কে দেখতে যায়। ঘরে ঢুকে সে দেখে, প্রদীপের উজ্জ্বল আলাের সামনে তক্তপােষের ওপর ধবধবে বিছানায় মৃত্যুঞ্জয় শুয়ে আছে। কঙ্কালসার দেহ দেখেই ন্যাড়া বুঝতে পারে যে বিলাসী সেবাযত্ন দিয়েই মৃত্যুঞ্জয়কে যমের হাত থেকে ফিরিয়ে এনেছে।

বিলাসী তখন মৃত্যুঞ্জয়ের শিয়রে বসে পাখার বাতাস করছে। ন্যাড়া সেই মুখের দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারল যে, খাটতে খাটতে আর রাত জাগতে জাগতে বিলাসীর শরীরে আর কিছুই নেই। ঠিক যেন ফুলদানিতে জল দিয়ে ভিজিয়ে রাখা বাসি ফুলের মতাে। হাত দিয়ে সামান্য স্পর্শ করলে, একটু নাড়াচাড়া করতে গেলে ঝরে পড়বে।

ক্লান্ত, বিষন্ন, দুর্বল শরীরের বিলাসীর প্রকৃত | বয়সও নির্ণয় করা যায় না। এই অবস্থা নির্দেশ করতেই লেখক ‘বিলাসী’ গল্পের কথক ন্যাড়ার জবানিতে প্রশ্নোক্ত কথাটি বলেছে।

সারকথা : অসুস্থ মৃত্যুঞ্জয়ের সেবা করতে গিয়ে রাত জাগতে জাগতে ক্লান্ত, বিষন্ন ও অত্যন্ত দুর্বল হয়ে পড়ে বিলাসী। সেই অবস্থার সঙ্গে যা তুলনা করে লেখক প্রশ্নোক্ত কথাটি বলেছেন।

গ উত্তরঃ উদ্দীপকটি বিলাসী’ গল্পের মৃত্যুঞ্জয়ের জন্য বিলাসীর ভালােবাসার দিকটিকে নির্দেশ করে। মানবসেবা বা পরােপকার মানুষের মানবিক চেতনাকে বিকশিত করে। মানবিক বােধসম্পন্ন মানুষ সব সময়ই অন্যের বিপদে এগিয়ে যায় এবং তাকে বিপদমুক্ত করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করে।

মানুষের প্রতি মানুষের ভালােবাসা ও আন্তরিকতা মানুষকে মানবিক করে তােলে। আবার অনেকে স্বার্থের জন্য মনুষ্যত্ব বিসর্জন দিয়ে হীন কাজে লিপ্ত হয়। উদ্দীপকে স্বামীর কবরের পাশে গিয়ে একজন অসহায় স্ত্রী কান্নাকাটি করেন। ব্যাকুল আহ্বান জানান ফিরে আসার জন্য। কিন্তু মৃত স্বামীর কাছ থেকে কোনাে সাড়া তিনি পাননি।

See also  আমার পথ প্রবন্ধের সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

এটি মূলত স্বামীর প্রতি একজন স্ত্রীর ভালােবাসার বহিঃপ্রকাশ। এ বিষয়টি বিলাসী গল্পে মৃত্যুঞ্জয়ের জন্য বিলাসীর ভালােবাসার দিকটিকে নির্দেশ করে। বিলাসী’ গল্পে বিলাসী মৃত্যুপথযাত্রী মৃত্যুঞ্জয়কে সেবা-শুশ্রুষার মাধ্যমে সুস্থ করে তুলেছিল। এর প্রতিদানে মৃত্যুঞ্জয় বিলাসীকে ভালােবেসে বিয়ে করে।

এ বিষয়টি তৎকালীন হিন্দু সমাজের সংস্কারাচ্ছন্ন স্বার্থবাদীরা মেনে নিতে পারেনি। তারা একদিন সদলবলে মৃত্যুঞ্জয়ের পােড়াবাড়িতে গিয়ে বিলাসীর ওপর হামলা করে । দশ-বারােজন বীরদর্পে বিলাসীকে চুলের মুঠি, হাত, কান ধরে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে চলে।

বিলাসী তখন তাদেরকে মিনতি করে বলে তাকে যেন একটিবার ছেড়ে দেওয়া হয়, যাতে সে স্বামীকে খাবারটা দিয়ে আসতে পারে। না হলে মৃত্যুঞ্জয় সারা রাত না খেয়ে থাকবে। তাই বলা যায় যে, উদ্দীপকটি আলােচ্য গল্পের মৃত্যুঞ্জয়ের জন্য বিলাসীর ভালােবাসার দিকটিকে নির্দেশ করে।

সারকথা : উদ্দীপকে স্বামীর প্রতি স্ত্রীর যে আবেগ-ভালােবাসা প্রকাশ পেয়েছে তা বিলাসী’ গল্পের মৃত্যুপথযাত্রী অসুস্থ মৃত্যুঞ্জয়ের প্রতি য় বিলাসীর আবেগ-ভালােবাসার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

আপনি এই পোষ্টে বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর  নিয়ে পড়তেছেন। এটি পূর্ণাঙ্গ পড়া শেষে আপনি এ সম্পর্কিত আরও পাঠ্য আমাদের সাইটে খুঁজে পাবেন। অথবা সার্চ বক্সে অনুসন্ধান করে ও আপনাদের সিলেবাস অবলম্বনে পাঠ্য আর্টিকেল খুঁজে পেতে পারেন। চলুন বাকী অংশ পড়ে নেওয়া যাক।

ঘ উত্তরঃ “উদ্দীপকের মূলভাব এবং ‘বিলাসী’ গল্পের মূলভাব এক নয়।” মন্তব্যটি যথার্থ। •মানুষের প্রতি মানুষের আন্তরিকতা এবং ভালােবাসা মানুষকে মানবিক করে তােলে।

কুসংস্কারে আচ্ছন্ন অন্ধ ধর্মবিশ্বাসীরা নিজেদের স্বার্থের জন্য মানুষের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করে। তারা মনুষ্যত্বহীন, অমানুষ। তাদের কাছে মানুষে মানুষে বন্ধন, ভালােবাসার কোনাে মূল্য নেই। উদ্দীপকে স্বামীর কবরের পাশে দাড়িয়ে রাতভর কান্নাকাটি করা আবেগপ্রবণ এক স্ত্রীর মানবিক আচরণ এবং স্বামীর প্রতি গভীর ভালােবাসা প্রকাশ পেয়েছে।

মানুষ জানে যে মৃত ব্যক্তি কবর থেকে সাড়া দেয় না। তার কাছে তা আশা করা অত্যন্ত বােকামি। তারপরও আবেগপ্রবণ মানুষ প্রিয়জনের কবরের পাশে গিয়ে দাড়ায়, প্রিয়জনের কাছে নিজের আবেগ-অনুভূতি প্রকাশ করে, কান্নাকাটি করে। এতে তার অস্থিরতায় কিছুটা হলেও স্বস্তি পায়।

উদ্দীপকের ব্যক্তিও তাই করেছে। এ বিষয়টির সঙ্গে ‘বিলাসী গল্পের স্বামী মৃত্যুঞ্জয়কে ঘিরে বিলাসীর আবেগের মিল রয়েছে। এছাড়া অন্য কোনাে বিষয় উদ্দীপকে নেই। ‘বিলাসী’ গল্পে বিলাসীর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল মৃত্যুঞ্জয়ের জীবন। তাই সে মৃত্যুপথযাত্রী মৃত্যুঞ্জয়কে সেবা দিয়ে সুস্থ করে তােলে।

মৃত্যুঞ্জয়ের কাছেও সবচেয়ে মূল্যবান ছিল বিলাসী। তল্কালীন হিন্দু সমাজের অমানবিক আচরণ সহ্য করে সে বিলাসীকে নিয়ে ভালাে থাকতে চেয়েছে। এ বিষয়টি উদ্দীপকে নেই। বিলাসী’ গল্পে জাত-বৈষম্যের যে দিকটি ফুটে উঠেছে তা উদ্দীপকে অনুপস্থিত। এ গল্পে একসঙ্গে সেবাপরায়ণা নারী, আত্মত্যাগী মানবহৃদয়, জাত-বৈষম্য যেভাবে প্রকাশ পেয়েছে তা উদ্দীপকে নেই। এসব দিক বিচারে প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি যথার্থ ।

সারকথা : উদ্দীপকে ‘বিলাসী’ গল্পের মৃত্যুঞ্জয়ের প্রতি বিলাসীর গভীর আবেগের দিকটি ছাড়া আর কোনাে বিষয় লক্ষ করা যায় না। এ গল্পে নারীর প্রতি হিন্দু সমাজের = অমানবিকতা, জাত-বর্ণের ভেদ-বৈষম্য, আত্মস্বার্থের জন্য হীন ষড়যন্ত্র রটনা ইত্যাদি বিষয় রয়েছে। এসব বিষয় উদ্দীপকে নেই। তাই বলা যায়, প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি যথার্থ।

ধন্যবাদ আপনার অনুসন্ধানের জন্য এবং আমাদের সাইটে ভিজিট করার জন্য। আশাকরি আপনার কাঙ্খিত তথ্য বিলাসী গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর আমাদের সাইটের মাধ্যমে সহজেই বুঝে নিতে পেরেছেন।

গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর পেতে এখানে চাপুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button